চটজলদি মুসুর ডালের কাবাব রেসিপি

ডিসেম্বরের মাঝামাঝি শীত বেশ জাঁকিয়ে বসেছে বাংলায়। আর শীত কাল মানেই লোভনীয় অনেক ধরণের খাবার। শহর জুড়ে থাকে উৎসবের মেজাজ। মাঠে মাঠে বিভিন্ন মেলা।সরস মেলা হস্তশিল্প মেলা খাদি মেলা ইত্যাদি। শাড়ি গয়না থেকে ঘর সাজানো সব জিনিস মেলায় মজুত থাকলেও খাবারের স্টল ছাড়া যেন মেলা অপূর্ণ। বাঙালির এমনিতেই বারোমাসে তেরো পার্বণ। উঠলো বাই তো খেতে যাই এমন একটা ভাব আর কি। তবে কোভিডের কারণে বাইরে গিয়ে খাওয়ায় কিছুটা ভাটা পড়েছে। লকডাউনে আট থেকে আশি সকলেই রকমারি রান্নায় হাত পাকিয়েছে। অখন্ড অবসরে পা না চললেও মুখ কিন্তু ভালোই চলেছে। স্টাটার কিংবা ডেজার্ট সবেতেই ভোজন রসিক বাঙালি। ইদানিং স্টাটারে কাবাব আইটেমটা খুবই হিট। চিকেন কাবাব মাটন কাবাব পনির কাবাব ভীষণ জনপ্রিয়। কিন্তু মাংস ছাড়াও কিন্তু কাবাব করা যায়। কাবাব ঘরানায় নতুনত্ব আনতে আজকে  একটা নতুন কাবাব রেসিপির কথা বলবো। প্রথমটা হলো মুসুর ডালের কাবাব। রোজকার জীবনে ভাতের সঙ্গে ডাল আমাদের থাকেই। সেই ডাল দিয়েও বেশ চমকদার ও নতুন একটা রান্না চেষ্টা করলে মন্দ হয়না।
মুসুর ডালের কাবাব :
উপকরণ – মুসুরির ডাল ১০০ গ্রাম, কুঁচি করে কাটা তিনটে পিয়াজ, রসুন বাটা এক চামচ, হলুদ গুঁড়ো এক চামচ, লঙ্কা গুঁড়ো আধ চামচ, ময়দা দুই চামচ,তেল ও নুন স্বাদ মতো।
পদ্ধতি – প্রথমে একশো গ্রাম ডাল কে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে। জলে ভিজে ডাল নরম হয়ে আসলে তাতে পিয়াজ ও রসুন বাটা যোগ করে সেটিকে সুসিদ্ধ করে নিতে হবে। সিদ্ধ করার পর ডালের জল ভালো ভাবে টানিয়ে নিতে হবে। এরপরে সিদ্ধ হওয়া ডালটা উনুন থেকে নামিয়ে ঠান্ডা হওয়া অবধি অপেক্ষা করতে হবে।
ঠান্ডা হলে ডালের সাথে পরিমান মত নুন মিষ্টি হলুদ গুঁড়ো লঙ্কা গুঁড়ো হিং ( দিতেও পারেন নাও দিতে পারেন) মিশিয়ে ভালো ভাবে চটকে নিতে হবে দেখতে হবে ডাল যেন গোটা না থাকে।
এবার সেই মিশ্রণ কে হাত দিয়ে গোল গোল করে কাবাবের মতো সাইজ তৈরি করে নিন।
এরপর ফ্রাই প্যানে তিন চামচ তেল দিয়ে গোল কেবাব গুলিকে দুই পিঠ করে ভেজে নিতে হবে মিডিয়াম আঁচে। ভাজা হয়ে যাওয়ার পর। গোল করে কাটা পিয়াজ, শসা, ধনে পাতার চাটনি দিয়ে গরম গরম পিরিবেশন করুন মুসুরডালের কাবাব। সন্ধ্যের মুখরোচক খাবার হিসেবে বেশ লোভনীয় হবে এটি বা রাতে হাতে গড়া রুটির সাথেও খাওয়া যেতে পারে। খুব সহজ ও ঘরোয়া পদ্ধতিতে তৈরি করে নিতে পারেন এই কাবাব টি। চাইলে এটি মুগ ডাল বা অন্য কোনো ডাল দিয়েও রান্না করা যেতে পারে।