• Home
  • Author: Bhagyasree Singha Arunima

অপ্রকাশিত ভালোবাসা

তোমাকে ভালোবাসতে গিয়ে ভুলে গেছি নিজেকে ভালোবাসতে, ভুলে গেছি নিজেকে ভালো রাখতে। তোমার জন্য সেজেছি, নিজেকে করেছি মূল্যহীন। তোমার ফিরিয়ে দেওয়া প্রেমপত্র বুকের ভাঁজে লুকিয়ে রেখে গুমরে মরেছি কেঁদে! সন্ধ্যে-সকাল তোমার পথ পানে চেয়ে কাটিয়েছি অহর্নিশ। তবুও তোমার দেখা পায় নি ভুলেও একবার! তুমি নিষ্ঠুর হয়েছ, কঠোর হয়েছ, আঘাত করেছ…

পেত্নী বউয়ের খপ্পরে (শেষ পর্ব)

সেদিনের পর থেকে আমার মনের মধ্যে একটা সন্দেহ দানা বাঁধতে থাকে। বউ টা কে দেখলেই না জানি কেন একটা অজানা ভয় চেপে বসছে। ঠিক করলাম মা কে বলবো এই কথা গুলো, কিন্তু তার আগে আমাকে নিজেকে একটু গোয়েন্দাগিরি করতে হবে। সেদিন অফিস থেকে ফিরে এসে শুনলাম বাপির নাকি শরীর টা…

পেত্নী বউয়ের খপ্পরে (দ্বিতীয় পর্ব)

পরের দিন সকালে যখন ঘুম ভাঙলো, চেয়ে দেখি আমি বিছানায় শুয়ে আর আমার বউ স্নান সেরে আয়নার সামনে চুল ঝাড়ছে। আমার মনে পড়তে লাগলো রাতের ঘটনার কথা। বউয়ের মুখের দিকে না তাকিয়ে আমি সোজা ওর ঠ্যাং এর দিকে তাকিয়ে ভালো করে পর্যবেক্ষণ করলাম, নাহ!! পা গুলো তো ঠিকই আছে। যেমন…

পাহাড়

এই শীত এলেই ইচ্ছে করে একটু পাহাড় ছুঁয়ে আসি, শীতের কুয়াশা ভেদ করে কিছু গল্প বুনে আসি, নরম রৌদ্রের আদুরে আলাপ মেখে ঘুরে আসি উপত্যকা নিয়মের বেড়াজাল অতিক্রম করে ছুঁয়ে আসি অবাধ্যতা! এই শীত এলেই ইচ্ছে করে একটু পাহাড় ছুঁয়ে আসি, সহজ-সরল মানুষ গুলোর জীবন দেখে আসি, শহরের কোলাহল অশান্তির…

পেত্নী বউয়ের খপ্পরে

সেদিন ফিরতে একটু বেশিই রাত হয়ে গিয়েছিল। এসে দেখি বাপির ঘরে কারা যেন এসেছে।  আমি খানিক দেখে মনে মনে ভাবলাম এতো রাতে আবার বাপির ঘরে কারা এরা? মা কে ডাক দিতেই মা এসে বললো - তোর জন্য একটা সম্বন্ধ এসেছে রে খোকা। নকুলগঞ্জের মেয়ে। পাত্রী দেখতে সুশ্রী, বাপের একমাত্র মেয়ে।…

জীবন যদি এমন হতো

জীবনের পথে হাঁটতে হাঁটতে একটা সময় পর আমরা ক্লান্ত অনুভব করি। অবসাদের প্রাচীর ঘিরে ধরে আমাদের চারপাশ। আমরা ভুলে যায় ভালো থাকার মন্ত্র। তিল তিল করে গড়ে তোলা স্বপ্নরা যখন শেষ হয়ে যায় এক-লহমায়, তখন মনে হয় জীবন বড়ো দূর্ভেদ্য। অন্ধকারে তলিয়ে যায় ক্রমশ।তাই বলে কি আমরা হার মেনে নিই?…

“সূর্যস্নাতা”- একটি মেয়ের ছবি

আজ বহুদিন পর ঋভুর সাথে দেখা হতে চলেছে অমলেশ এর। রবীন্দ্রসদনে ওর একটা ছবি প্রদর্শনী রয়েছে। অবশ্য এখন ঋভু আর সেই ঋভু নেই, ও এখন শহরের নামকরা আঁকিয়ে। খুব শীঘ্র নাকি বিদেশেও পাড়ি দেবে সে। এমন্টাই শুনেছে অমলেশ। অফিস থেকে ফেরার পথে হঠাৎ করেই মনে পড়ে গেলো অমলেশ এর। বাড়ি…

এক বৃষ্টি ভেজা দিনে

আজ সকাল থেকেই ঝিরিঝিরি বৃষ্টি পড়ছে। আকাশেতে জমে আছে ঘন কালো মেঘ। এখনও ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। সাজি দোকানে একলা ঠাঁই বসে আছে। সকাল থেকে একটাও কেউ আসেনি ফুল কিনতে। এই বৃষ্টির সকালে কেই বা আসবে ফুল কিনতে! সাজি হলো গিয়ে এ পাড়ার মিত্তিরদের বাড়ির মেয়ে। বয়স ২৫ কি ২৬…

তিতাস (তৃতীয় পর্ব)

তিতাস তৃতীয় পর্ব (১) কালো মেঘ গুলো কেটে গেছে। ধীরে ধীরে সূর্যের লাল আভা এসে ছুঁয়ে দিচ্ছে মাটি। উত্তপ্ত সূর্যের রৌদ্র এসে খেলা করছে অবলীলায়। কালিম্পং এর ছোট্ট গ্রাম লোলেগাঁও। অগনিত রাশি রাশি পাইনে গাছের পাতার ফাঁক-ফোকর দিয়ে রৌদ্র যেন লুকোচুরি খেলায় ব্যাস্ত। স্নিগ্ধ একটা সকাল। ধোঁয়া ওঠা চায়ের কাপে…

তিতাস (দ্বিতীয় পর্ব)

রিহাস~ ২৭-২৮ এর ইয়ং, হ্যান্ডসাম, কুল বয় রিহাস। সেও তিতাসের মতই এই শহরের বুকে একাই থাকে। গান নিয়ে ঘর-ছাড়া সে। তার বাবার ইচ্ছের বিরুদ্ধে যাওয়ার জন্য নিজের ঘর থেকেই বিতাড়িত সে। বাবার ব্যাবসায় কোনোকালেই মন ছিল না রিহাসের। গান পাগল ছেলে সে। গান নিয়েই মেতে থাকত, ইনফ্যাক্ট এখনো থাকে। আরে…