fbpx
গ্রাম বাংলার ভ্রমণ বৃত্তান্ত (পুরুলিয়া)-দ্বিতীয় পর্ব

গ্রাম বাংলার ভ্রমণ বৃত্তান্ত (পুরুলিয়া)-দ্বিতীয় পর্ব

ভ্রমণ একপ্রকার শখ, যা কমবেশি সব মানুষেরই থাকে। শীতকাল ভ্রমণের সবচেয়ে ভালো এবং মনোরম সময়। শীতকাল ভ্রমণের সবচেয়ে ভালো এবং মনোরম সময়। অন্য বছরের তুলনায় এই শীত জাঁকিয়ে পড়েছে শহরে।

তাই ভ্রমণপিপাসু মানুষের জ‍ন‍্য এরচেয়ে ভালো সময় আর হবে না।

আজ পুরুলিয়া জেলার অচেনা কয়েকটি ভ্রমণ কিংবা পিকনিক করার স্থান সম্পর্কে আলোচনা করবো।

বারান্তি জলাধার

সবুজ রঙের ঘন বনে ও পাহাড় ঘেরা এটি একটি শান্ত হ্রদ। এর চারপাশ কম জনাকীর্ণ এবং এটি শান্তিপূর্ণ স্থান।

শান্তিপূর্ণ ও মনোরম ভ্রমণ স্থানের জন‍্য  বারান্তি লেক একটি আদর্শ বাছাই। আপনি একটি পিকনিক হ্যাম্পার প্যাক আপ করতে পারেন এবং বারানতীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করতে পারেন, যেখানে আপনি খেতে এবং চমৎকার দৃশ্যে এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশে উপভোগ করতে পারবেন। আপনাকে বিরক্ত করার কেউ থাকবে না।

বারানতিকে কয়েকটি দুর্বল পাহাড়ে ঘেরা একটি মনোরম ভ্রমণ স্থান। আপনি লেকের পাশাপাশি ঘন জঙ্গলের ঘুরে বেড়াতে পারেন। যদি বারান্তিতে তাঁবু স্থাপন করেন তবে আপনি অনেক কিছুই করতে পারেন! কলকাতা থেকে গাড়িতে সহজেই  প্রায় ৫ থেকে ৬ ঘন্টায় পৌঁছাতে পারবেন এই সুন্দর জায়গাটিতে।

ডলডাঙ্গা

মনবাজার পঞ্চায়েত সমিতির কংসবতীর তীরে ডলডাঙ্গা আস্তে আস্তে একটি জনপ্রিয় পিকনিক স্পট হয়ে উঠছে। প্রকৃতির মনোরম সৌন্দর্যের মাঝে একটি সুন্দর জলাশয়। সঙ্গে নৌকা ভ্রমণ, হরিণ পার্ক এবং দ্বীপ, এই ভ্রমণ স্থানটিকে আরও সুন্দর করে তুলেছে।

গড় পঞ্চকোট

গড় পঞ্চকোট পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার পঞ্চেত পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত।  গড় পঞ্চকোট পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম আশ্চর্যজনক কম পরিচিত পর্যটন স্পট।  এটির ঐতিহাসিক এবং প্রাকৃতিক মূল্য উভয়ই রয়েছে।  দামোদর নদীর পঞ্চেত বাঁধ এর খুব কাছেই অবস্থিত।

এই দুর্গের একটি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ইতিহাস রয়েছে।  ১৮ শতকে বরগির আক্রমণ থেকে এটি ধ্বংসস্তূপে রয়েছে।  তৎকালীন বাংলার নবাব আলীবর্দী খানের মুখোমুখি হওয়ার জন্য রুস্তম জংয়ের অনুরোধে ১৮  শতাব্দীর সময় নাগপুরের রাঘোজি ভোঁসলে প্রেরিত মারাঠা অশ্বারোহী।  পুরুলিয়ার পার্বত্য অঞ্চল দিয়ে অশ্বারোহী রাজ্যে প্রবেশ করেছিল।  সেই মারাঠা অশ্বারোহীরা তখন ‘বরগি’ নামে পরিচিত ছিল।  সেনাবাহিনী দুর্গটিকে লুণ্ঠন করে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করে।

গড় পঞ্চকোট পঞ্চেত পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত।  পাহাড়টি ২১০০ ফুট উঁচু এবং এটি বিভিন্ন ধরণের গাছের ঘন বন দ্বারা আচ্ছাদিত।  আশ্চর্য দৃশ্যের কোনও অভাব নেই।  ট্র্যাভেলব্যাগ এবং ফটোগ্রাফাররা এই জায়গাটির চারপাশে বিভিন্ন ধরণের পাখি এবং গাছ দেখতে পাবেন।  দুর্গে সিংহ-দ্বার, রানী মহল, মন্দির এবং গার্ডের কোয়ার্টার রয়েছে।  প্রবেশ পথের সামনে একটি আধা-বৃত্তাকার শাবক রয়েছে।  প্রাসাদে প্রবেশের আগে একজনকে শৈথিল পার করতে হবে।  ধ্বংসস্তূপগুলি বিশ হাজার বর্গফুট পর্যন্ত ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে যা প্রাসাদের বিশাল কাঠামোর প্রমাণ।  একজন রাজপুত রাজা এটি নির্মাণ করেছিলেন বলে বিশ্বাস করা হয়।  কাঠামোর প্রাচীনত্ব এবং এর চারপাশে আশ্চর্যজনক আড়াআড়ি, এই অচেনা জায়গাটি সমস্ত ভ্রমণ আসক্তদের জন্য অবশ্যই নজরদারি করে। গড় পঞ্চকোট এখনো পর্যন্ত অনেকের কাছেই অচেনা কিন্তু সুন্দর ভ্রমণ স্থান।

এখানে একটি রিসর্ট রয়েছে যার সৌন্দর্যে আপনি মুগ্ধ হতে বাধ‍্য হবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *