fbpx
Interviews

“মেন্টররা না থাকলে মীরাক্কেলে টেকা যাবে না”, প্রীতম

১. নমস্কার প্রীতমদা, LaughaLaughi তে তোমায় স্বাগত!

– ধন্যবাদ। LaughaLaughi তে এসে আমার নিজেরও খুব ভাল লাগছে।

২. আচ্ছা, মীরাক্কেল তো বেশ কয়েকটা সিজন বন্ধ। কি মনে হয় মানুষ ইন্টারেস্ট হারিয়েছে?

– আসলে নতুন করে কিছু না আনলে মানুষ সেটাকে গ্রহণ করবে না। নতুন কনসেপ্ট ভাবতে হবে যা দর্শককে আকর্ষণ করবে। মীরাক্কেলে জোকস যেরকম হয়, তার থেকে আলাদা কিছু চেষ্টা করতে হবে। তবে আশা করি, খুব শীঘ্রই মীরাক্কেলের নতুন সিজন দর্শক দেখতে পাবে।

৩. মীরাক্কেলে অডিশনের দিন আর সিজন চলাকালীন সময়ে কিভাবে নিজেকে তৈরি করেছিলেন?

– অডিশন দেওয়ার সময় কখনো ভাবিইনি যে সুযোগ পেয়ে যাবো। মীরাক্কেলে আমি আর বাবিন একসাথে পারফর্ম করতাম। তার আগে আমরা দুজন একসাথে থিয়েটার করতাম, এখনো করি। সেখান থেকেই দুই বন্ধু ঝোঁকের বশে অডিশন দিয়ে ফেলি। সপ্তাহখানেক পরেই Z বাংলা থেকে সিলেক্ট হওয়ার লেটার আসে। যদিও তারপরেও আরো অনেকগুলো স্টেপ পার করে অবশেষে মূলপর্বে আসি আমরা। লড়াইটা সত্যিই খুব কঠিন ছিল। তবে আশাবাদী ছিলাম যে, ভাল কিছু হতে পারে।

৪. স্ক্রিপ্টের ব্যাপারে কতটা হেল্প করতো মেন্টররা?

– প্রচন্ড। মানে যে কোনো জায়গায় প্রবলেম হলেই আমরা মেন্টরদের জ্বালাতাম। কোন জায়গাটা পাল্টাতে হবে, কোন জায়গাটা আরেকটু ভালো হওয়া দরকার সেগুলো জিজ্ঞাসা করে মাথা খারাপ করে দিতাম। কিন্তু ওঁরা না রেগে শান্ত মাথায় আমাদের সব বুঝিয়ে দিতো। মেন্টররা না থাকলে আমরা এই জায়গায় পৌঁছাতে পারতাম না। এমনকি এটাও বলতে পারি, মেন্টররা না থাকলে মীরাক্কেলে কেউ টিকে থাকতে পারবে না। তবে আমার আর বাবিনের মধ্যেও বোঝাপড়া ভাল ছিল। সেই ব্যাপারটা নিজেরাও স্ক্রিপ্টে খেয়াল রাখতাম।

৫. মীরাক্কেলের পর তোমার পরিচিতি বেড়েছে। সেই বিষয়টা কতটা উপভোগ করছো?

– দেখো, মীরাক্কেলের আগে সিরিয়ালে ছোটখাটো রোল করেছি ঠিকই, কিন্তু জনপ্রিয়তা আমায় মীরাক্কেলই দিয়েছে। তবে আমার থেকে বেশি খুশি আমার বাবা-মা। কারণ আমি গ্রাম থেকে উঠে আসা একজন। মীরাক্কেলে আমায় পারফরম্যান্স-এর পর যখন গ্রামের সবাই আমায় চিনতে শুরু করল, তখন সবাই বাবাকে ডেকে বলতো, আপনি তো প্রীতমের বাবা। সেইসময়টাই বলতে পারো, আমার কাছে সবচেয়ে আনন্দের।

৬. মীরাক্কেলের অভিজ্ঞতার কথা এককথায় যদি বলো।

– মীরাক্কেলের অভিজ্ঞতা এক কথায় বর্ণনা করা যাবে না। প্রায় ১ টা বছর আমরা সবাই একসাথে ছিলাম। একসাথে খাওয়া, একসাথে ঘুমাতে যাওয়া। বলা যেতে পারে, জীবনের শ্রেষ্ঠ সময় কাটিয়েছি ওই ১ টা বছর। আমি মনে করি, জীবনে সবার এরকম একটা সুযোগ আসা উচিত। তাহলে সে নিজেকে মানুষ হিসেবে খুব সহজে গড়তে পারবে। নিজেকে চিনতে পারবে। তবে অবশ্যই সেটা মীরাক্কেলে সম্ভব নয় সবার পক্ষে।

৭. আজ যদি আবার মীরাক্কেল শুরু হয়, মীরের বিকল্প কে হতে পারে?

– সত্যি বলতে, মীরের বিকল্প বাংলায় কেউ নেই। উনি সর্বগুনসম্পন্ন একজন। অথবা বলা যেতে পারে, বহুমুখী প্রতিভা। আর সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে ওঁর সমপক্ষ কেউ নেই। কেউ হতেও পারবে না।

৮. মীরকে সেটে দেখার অভিজ্ঞতা কেমন?

– দারুণ। ওঁকে আমরা অনস্ক্রিন যেমন দেখি, অফস্ক্রিনেও খানিকটা সেরকমই। প্রচন্ড মজাদার একজন মানুষ। এমনকি আমাদের পারফরম্যান্স-এর ক্ষেত্রেও মীরদা অনেকসময় সাহায্য করেছেন।

৯. ওখানে আপনার কোন স্মরণীয় ঘটনা?

– ওখানে যতদিন ছিলাম, প্রত্যেকটা দিনই স্মরণীয়। তবে আলাদা করে একটা দিনের কথা জানতে চাইলে বলব, আমার আর বাবিনের একটা পারফরম্যান্সের পর পরাণদা, শ্রীলেখাদি আর রনিদা উঠে দাঁড়িয়ে হাততালি দিয়েছিল। বলা যেতে পারে, স্ট্যান্ডিং ওভেশন। সেই সিজনে সর্বপ্রথম আমাদের ওই পারফরম্যান্সের পরেই স্ট্যান্ডিং ওভেশন দিয়েছিল বিচারকরা। সেই দিনটা আমি সারাজীবন মনে রাখবো। তবে হ্যাঁ, সেদিন আমাদের সঙ্গে ইমনদাও স্টেজে ছিল। আর ইমনদা না থাকলে আমরা অতো সহজে সেদিনের পারফরম্যান্স করতে পারতাম না।

১০. পরান বন্দোপাধ্যায়, শ্রীলেখা, রনি দা কে এত কাছ থেকে দেখেছেন, ওনারা অফসেটে কিরকম?

– একেবারে জলি গুড। আমাদের খোঁজখবর অবধি রাখতো তাঁরা। আমরা খেয়েছি কিনা, কখন কি করছি সব ছিল ওঁনাদের নখদর্পনে। এমনকি যেদিন খেতাম না, সেদিন শ্রীলেখাদি জোর করে ব্যাকস্টেজে এসে চকলেট খাইয়ে যেত। রনিদা, পরাণদা এনারাও কম কিছু করেননি।

১১. পরবর্তীতে আর কি কি করতে চলেছো?

– পরবর্তীতে শর্টফিল্ম আসছে ৩ টে মতো। সিরিয়াল করার কথা চলছে। একটা সিনেমার শ্যুটিং শেষ করেছি রিঙ্গো ব্যানার্জির সঙ্গে। সেটা এখনই প্রকাশ্যে বলতে চাই না। এছাড়াও নাটক তো আছেই। এরমধ্যেই আমরা নতুন একটি নাটক মঞ্চস্থ করব। দেখা যাক, আর কদ্দুর কি হয়।

১২. তোমার সঙ্গে কথা বলে খুব ভাল লাগল। LaughaLaughi এর জন্য যদি কিছু মেসেজ দাও।

– আমারও খুব ভাল লাগল তোমার সঙ্গে গল্প করে। আর সত্যি বলতে আমি নিজেও LaughaLaughi এর একজন ফলোয়ার। নিয়মিত পেজ ফলো করি। আর একটা কথা বলতে চাই, আমি অভিষেক করের লেখার ভক্ত। অন্য যারা ফলোয়ার্স আছো, তাদের বলবো যে, এভাবেই তোমরা LaughaLaughi-এর পাশে থাকো। LaughaLaughi কে ভালোবাসো।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker