Dedication

ভালো থেকো LaughaLaughi

আজ LaughaLaughi দিবস। LaughaLaughi আজ লাফিয়ে লাফিয়ে পা রাখল ৩-এ, তাই আমাদের সবার তরফ থেকে তাকে জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা।
LaughaLaughi শুধুমাত্র একটা নাম বা website বা facebook page বা একটা media organisation নয়, এটা একটা পরিবার, একান্নবর্তী পরিবার। তো সব পরিবারে যেমন একজন head of the family থাকে, তেমনি আমাদের পরিবারেও আছে, তবে একজন নয়, দুজন। তাই যাদের ছাড়া আজ LaughaLaughi-র অস্তিত্ব সম্ভব ছিলনা, তাদেরই একজনকে নিয়ে বলব কিছু কথা।

দুই বন্ধু, দুজনেরই পড়াশোনার বিষয় কম্পিউটার। রোজের অফিস আর একঘেয়ে রোজনামচায় ক্লান্ত এই দুই বন্ধু একদিন ঠিক করল যদি নতুন কিছু করা যায় তবে কেমন হয়, যেটার সাথে মানুষ নিজেকে connect করতে পারবে বা মানুষের রোজকার একঘেয়ে জীবনে এনে দেবে এক নতুন স্বাদ। আর সেই ভাবনা থেকেই জন্ম নেয় LaughaLaughi। দিনটা ছিল আজ থেকে ঠিক ৩ বছর আগে ২০১৪ সালের ১১-ই নভেম্বর।

পুরো ব্যাপারটা অন্যরকম করার সাথে সাথে নামটাও তো অন্য রকম হওয়া দরকার, তাই সেই জায়গা থেকেই উঠে এল একটা unique নাম LaughaLaughi, আর এই নামের পিছনে যার অবদান সর্বাপেক্ষা সে হল দীপ ভট্টাচার্য, আমাদের সবার প্রিয় দীপ দা।

নাম ভাবনাটাও বেশ অদ্ভুত ছিল। যদি বাংলায় LaughaLaughi (লাফালাফি) শব্দটা বলা হয়, তবে তার মানে দাঁড়ায় আনন্দ বা উল্লাস, অন্যদিকে ইংরাজিতেও LaughaLaughi (Laugh-a Laugh-i) শব্দটার মানে দাঁড়ায় হাস্যরস সম্বন্ধীয়।

আমাদের নিয়মিত পাঠক-পাঠিকা বেশ অনেক, তবে অনেকের মনেই এই নাম বা নেপথ্যে থাকা মানুষগুলোকে নিয়ে অনেক প্রশ্ন, আর এই নেপথ্যে থাকা মানুষগুলোর মধ্যে অন্যতম দীপ দা। খাতায় কলমে কম্পিউটারের ছাত্র হয়েও এইরকম একটা ভাবনায় রূপদান করেছে, যেখানে সাহিত্য থেকে সঙ্গীত, রূপচর্চা থেকে খবর সব কিছুরই চর্চা হয়ে থাকে। এবার হয়তো আপনাদের জানতে খুব ইচ্ছে হচ্ছে যে এই মানুষটা ঠিক কেমন! বেশ হাসিখুশি মজার মানুষ আমাদের দীপ দা। একটা খুব জটিল কথা খুব সহজেই সহজভাবে কিভাবে বোঝানো যায়, মানুষটা সেই বিষয়ে সিদ্ধহস্ত। একদিকে সুবক্তা, আবার অন্যদিকে স্পষ্টবাদী। হাসিতে, মজায় যেমন মাতিয়ে রাখে আমাদের, ঠিক তেমনি ভুল করলে বকুনি দিতেও ভোলে না। শুরুর দিনটা থেকেই নিজের কাজ, ব্যক্তিগত জীবন সবটা সামলেও LaughaLaughi-কে আগলে রেখেছে যত্ন করে। তাই আজ আজকের দিনে আমাদের তরফ থেকে সামান্য সম্মান দীপ দা সহ নেপথ্যে থাকা বাকি মানুষগুলোকে, যাদের মস্তিষ্কপ্রসূত ভাবনা আর অক্লান্ত পরিশ্রম ছাড়া এই সাফল্য অসম্ভব ছিল। আর সবশেষে ধন্যবাদ আপনাদের, আমাদের সমস্ত পাঠক-পাঠিকাদের, যারা প্রতিদিন ধৈর্য্য ধরে, ভালোবেসে আমাদের সাথে থাকেন।

এবার আপনাদের প্রশ্ন থাকতে পারে যে আমি তো শুধুমাত্র একজন মানুষের কথাই বললাম, তাহলে বাকিদের কথা জানবেন কিভাবে? তাদের কথা জানতে হলে থাকতে হবে LaughaLaughi-র সাথে। Stay tuned…

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker