মনখারাপের বৈধতা – আর সেই ম্যাজিশিয়ানরা!

মন খারাপ বোঝেন?কখনো ভেবেছেন কয় প্রকারের ও কি কি হতে পারে এ জিনিশ! এই ধরুন আপনি আপনার মানুষটিকে নিয়ে বা হতে পারে পুরনো কিছু না মিলতে চাওয়া হিসেব নিয়ে ভিষণ রকম  ঘেঁটে আছেন,লোকজন বলবে এই মনখারাপ মহান গোছের। কেন বলুন তো মন জিনিশটাতো নিজের,খারাপ হলে তো নিজের জন্য হওয়া উচিত। অবশ্য নিজের কথা ভেবেছ কিনবা রটিয়েছ ওমনি তুমি স্বার্থপর হয়েছ।কখনো নিজের পাওয়া নাপাওয়া,চাওয়া গুলো নিয়ে ভেবে কষ্ট পেয়েছ? ও জিনিশ সবসময় পাই,বার বার সবাই তবু মনে করায়  হিসাব রাখতে নেই নাকি ওসবের। কখনো অন্যের আশা না পূরন করার কষ্ট পেয়েছো?আমি আমরা তুমি তোমরা প্রতিদিন এমন কত কষ্টর সাথেই ওঠাবসা করি। আর নিজের  ইচ্ছাডানায় ভর করে মুক্তি খোঁজার মন খারাপ গুলো? ওসব নাকি অবৈধ! সুপ্রিম কোর্ট  সব মনখারাপ গুলোর  বৈধতা নিয়ে কবে ভাববে বলুন তো? আচ্ছা মনখারাপ গুলোর ওষুধ পাওয়া যা? কি রকম দেখতে হয়? পুরিয়া নাকি ছোট্ট মিষ্টি গুলি? নাকি তিতকুটে বড়ি! ভুল সব ভুল!সুদূর ঘানা থেকে আসা এক মোহিনী তার গন্ধ স্বাদ আর মন ভালোকরার নেশায় মাতিয়েছে গোটা দুনিয়া! আরও একটা উপায় আছে!চলে যেতে হবে মনপসন্দ ভোজন আস্তানায়। ব্যাপার জমে ক্ষীর! তাও! তাও কাজ হল না? তবে মোক্ষম উপায়!সময় নষ্ট না করে ডেকে নিন আপনার মানুষটিকে!ও আপনি কিছুদিন ওসব থেকে বিরতি নিয়েছেন তাহলে ক্রাইম পার্টনারটিকে জ্বালাতন করুন,হরর মুভি সাথে অনবদ্য কিছু আনিয়ে নিন, আসলে আরাম আর শান্তির মাঝে একটা সূক্ষ ফারাক থাকে, যার কাঁধে মাথা রাখলে এসব ঘুচে যায়,তাকে আদতে ম্যাজিশিয়ান কয়!