fbpx
Horror

পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটি ভূতুড়ে স্থান – অন্তিম পর্ব

পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটি ভূতুড়ে স্থানের এটি অন্তিম পর্বে। আগের পর্বে আমরা কোলকাতার কিছু ভূতুড়ে স্থান নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। অন্তিম পর্বে থাকছে বাকিটুকু।

রয়‍্যল কোলকাতা টার্ফ ক্লাব :

অনেক আগে, জর্জ উইলিয়ামস এখানে বসবাস করতেন। তিনি ঘোড়দৌড়ের জন‍্য পাগল ছিলেন। তাঁর কাছে একটি তুষার সাদা ঘোড়া ছিল, যার নাম ছিল ‘প্রাইড’। বয়সের অন্তিম অবধি প্রাইডের অপর তাঁর ভরসা ছিল অটুট। প্রাইড ছিল চ‍্যম্পিয়ন।

সময়ের সাথে সাথে, প্রাইড বৃদ্ধ ও দুর্বল হয়ে ওঠে। একদিন সে একটি ডার্বি হারে শেষ পর্যন্ত তার মৃত্যু হয় এবং পরের দিন ট্র্যাকেই প্রাইডের মৃতদেহ পাওয়া যায়।

রয়্যাল কলকাতা টার্ফ ক্লাবের পাশাপাশি রেস কোর্স নামেও পরিচিত এই মাঠে অনেকে শনিবার রাতে চাঁদের আলোতে একটি সাদা ঘোড়া চলাচল করতে দেখেছে। কলকাতায় অবশ্যই এমন এক ভীতিকর জায়গা যা কেউ এড়াতে চায়।

কলকাতা রেস কোর্সে কুয়াশার শনিবার রাতে ভয়ংকর ও ভীতিকর। মানুষ ও রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীরা “উইলিয়াম সাহেব কি সাদ ঘোড়া” এর সাথে কুয়াশাকে বর্ণনা করে।

পার্ক স্ট্রিট কবরস্থান :

এটি 1767 সালে নির্মিত কলকাতায প্রাচীনতম কবরস্থানগুলির মধ্যে অন্যতম। সমাধিভূমিতে অনন্য প্রশান্তি, লম্বা গাছপালা এবং বয়স্ক পুরোনো কবরগুলি, যা বেশিরভাগ ব্রিটিশ সৈন্য ছিল, তার নিজস্ব বিচিত্র সৌন্দর্য রয়েছে। এটি কলকাতার সবচেয়ে ভীতিকর স্থানগুলির মধ্যে একটি।

ভয়ের জন্য কবরস্থান নামটাই যথেষ্ট। দেয়ালের উপর অদ্ভুত ছায়া দেখানো এবং শোচনীয় শব্দ শোনার মতো ঘটনাগুলি আরও অযৌক্তিক উপস্থিতির অদ্ভুত অনুভূতিকে আরো জোরদার করে।

অন্তিম শোনা ঘটনা অনুযায়ী কয়েকটি বন্ধুদের একটি গ্রুপ ফটোগ্রাফির জন্য কবরস্থান পরিদর্শন করতে যায়। হঠাৎ ফটোগ্রাফার এবং তার বন্ধুদের মাথা ঘোরা এবং শ্বাসকষ্ট অনুভূত হয়।

এমনকি কয়েকটি ফটোগ্রাফে কিছু অস্পষ্ট ছায়া ধরা পড়ে। মেরুদণ্ড শীতল, তাই না? এই কবরস্থানের সাথে কলকাতায় অনেক অনুরূপ বাস্তব ভূত ঘটনা ঘটেছে।

রাইটার্স বিল্ডিং :

রাইটার্স বিল্ডিংটি ব্রিটিশ রাজ্যের ক্লার্ক এবং জুনিয়র কর্মীদের সাবেক অফিস ছিলো এবং বর্তমানে রাজ্য সরকারের সচিবালয়।

ভবনের ভেতরে অনেক বিশাল এবং খালি কক্ষ রয়েছে; যেগুলো দেখলে আপনি ভীত সন্ত্রস্ত হতে পারেন। শ্রমিকরা রাতে এখানে কাজ করতে অস্বীকার করে, কিন্তু শেষ পর্যন্ত ভূত কি শুধুই অজুহাত?  নাকি আদি অন্তিম কিছু আছে!

সন্ধ্যায় সড়কপথের পাশে রাস্তার পাশে রক্ষীদল ও খাদ্য বিক্রেতারা ভয়াবহ কান্নার আওয়াজ শুনেছেন।

পুতুলবাড়ী :

পুতুলবাড়ী এক শতাব্দী পুরনো ঘর, প্রায় ধ্বংসাবশেষ। স্থাপত্যে পুতুল বর্ণনা করা হয়েছে, তাই নাম পুতুল বাড়ি। বাড়িটি একসময় বাংলার সমৃদ্ধ জমিদার বাস করত, যারা নারীদের নির্যাতন ও শোষণ করতো।

স্থানীয় বাসিন্দাদের কথা অনুযায়ী, রাত্রে এ বাড়ি থেকে তাঁরা ফিসফাস ও ভুতুড়ে কান্না শুনেছেন।

এখানেই অন্তিম নয়, বলা হয়, এই প্রাচীন বাড়িটির সিঁড়ি দিয়ে রাতে ওপরের তলে যেতে পারলে আপনি সাহসিকতার পুরস্কার পাবেন।

রবীন্দ্র সরোবর মেট্রো স্টেশন :

দক্ষিণ কলকাতার ব্যস্ততম মেট্রো স্টেশনগুলির মধ্যে রবীন্দ্র সরোবর এক। ঘটনাচক্রে, এই মেট্রো স্টেশনে অনেক মানুষ আত্মহত্যা করেছেন।

শোনা যায়, রাতের অন্ধকারে আত্মহত্যাকারীদের আত্মা এই স্টেশনে ঘুরে বেড়ায়।

প্ল‍্যাটফর্মের স্তম্ভগুলিতে অদ্ভুত রকমের ছায়া দেখতে পাওয়া গেছে। এছাড়াও অনেকে রেলওয়ে ট্র‍্যাকের ওপর অদ্ভুত কিছু হাঁটতে দেখেছেন। এই মেট্রো স্টেশন সম্পর্কে আরও অনেক গুজব রয়েছে।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker