নীল আকাশের শ্রাবণী – সমাপ্তি পর্ব

“নীল আকাশের মাঝে কোনোদিন শ্রাবণী দেখেছো?’ দেখার কথাও নয় আকাশ নীল থাকলে শ্রাবণ ঝরে পড়ে না! তাই হয়তো! যাকগে ছাড়ো” অন‍্যমনস্ক ভাবে বলল নীল।

“কি যে বললে কিছু বুঝলাম না। নীল, আকাশ, শ্রাবণ, শ্রাবণী কিসব বললে!”- কৌতূহলের সঙ্গে প্রশ্ন করলো মেঘ।
মেঘের কথা কেটে নীল বলল- “ওসব কিছুনা, ছাড়ো তো। তোমার গল্প বলো”

“আমি যাকে নিজের চেয়েও বেশি ভালোবাসতাম। সে কিনা বলে তার জীবনে আমার কোনো মূল‍্য নেই। আমি তার কাছে শুধুমাত্র একটা তৃষ্ণা মেটানোর খেলনা। সহ‍্য করতে পারিনি জানো! তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম জীবন দেব। কিন্তু পারলাম আর কই!” – চোখের কোণে অশ্রুবিন্দু গড়িয়ে পড়ল মেঘের। হঠাৎই সে চোখ মুছে নীলকে প্রশ্ন করল “আচ্ছা শ্রাবণী কে?”

“আচ্ছা ভালোবাসতে মানে, এখন আর বাসো না!”- প্রশ্ন এড়িয়ে আরেকটা সিগারেট ধরাল নীল।
“এখনো বাসি অবশ‍্যই।”-চোখ মুছতে মুছতে বলল মেঘ।
“জীবন দেওয়া অত সহজ না বুঝলে। ওটার প্রতি সবারই টান আছে। আর রিলেশনে এরম হয়েই থাকে, তার জন‍্য এতবড়ো সিদ্ধান্ত নেওয়া ঠিক না। শ্রাবণী যা ভুল করেছে তা আর কেউ যেন না করে!”

-তুমি না থাকলে আজ হয়তো আমিও শিলাবতীর স্রোতে ভেসে চলে যেতাম বহুদূরে।
-ভাগ‍্যিস্ আমি ছিলাম নাহলে হয়তো  আর একটা ভুলমৃত‍্যু ঘটত আজ! আর একজন হয়ত জীবন্ত লাশ হয়ে বেঁচে থাকত!
-আরেকটা মানে, আগে…

এমতাবস্থায় পিছন থেকে শ্রাবণী সদৃশ গলায় ডাক পড়ল “এই নীল, কখন থেকে তোকে খুঁজছি। আর তুই এখানে! কি করছিস এতক্ষণ?”

-আরে এই যে গল্প করছিলাম মেঘের সাথে।
“কে মেঘ! এখানে তো কেউই নেই।” চারদিক শূণ‍্য দেখে অবাক হয়ে বলল শ্রাবণী ।

-“কখন চলে গেল কে জানে! এখানেই তো বসেছিল। জানিস মেয়েটা ভুল বোঝাবুঝির পাল্লায় পড়ে জলে ঝাঁপ দিতে এসেছিল। ভাগ‍্যিস আমি ছিলাম নাহলে হয়তো…”

-বাহ্, তুই বাঁচিয়ে দিলি তাহলে।
“শুধু তোকেই বাঁচাতে পারলাম না। সেদিন দুজনের মনোমালিন‍্যে তুই নিজেকে বিসর্জন দিলি!” নীলের চোখ ছলছল করে উঠল।
“কে বলল আমি মরে গেছি। আমি তো এখনো বেঁচে আছি তোর মধ‍্যে। বেঁচে নেই, তুই ই বল!” নীলের চোখের জল মুছিয়ে দিতে দিতে শ্রাবণী বলল।

শ্রাবণীকে জাপটে ধরে কাঁদতে লাগল নীল। নীলকে শান্ত করে শ্রাবণী বলল- “দূর পাগল। কাঁদবি না। যা বাড়ি যা। কাকিমা খামখা চিন্তা করবেন। কাল আবার দেখা হবে। এখন বাড়ি যা।”
-“ওকে চল বাই। আর কাল একটু তাড়াতাড়ি আসিস। আজ এতো দেরি করলি!”
-“ঠিক আছে, কাল তাড়াতাড়ি আসবো। প্রমিস। আজ বাই।”

Leave a Reply