fbpx
Special Story

গানগল্প

সময়টা তখন ১৯৭৫, যখন বাংলা মূলধারার গান ভীষণ ভাবে অবদমিত , ঠিক সে সময়েই সঙ্গীত জগতে ‘ব্যান্ড’ শব্দের উন্মোচন ঘটাল কয়েকটি ছেলে৷ সবাই তাদের চিনল ‘মহীনের ঘোড়াগুলি’ নামে৷ পাশ্চাত্য রক সঙ্গীত এবং বব ডিলানের ‘ ফোক মুভমেন্ট’ – এর প্রতিচ্ছবি দেখাল তারা তাদের গানের মধ্য দিয়ে৷ টেলিভিশন যে আমাদের কতটা আত্মকেন্দ্রিক করে তুলেছে, পৃথিবী যে আজ হাতের নাগালে- ওরাই বলেছিল৷ দূরত্ব যে আলোকবর্ষ সমান হতে পারে ওরা দেখিয়েছিল৷ ‘ ভেবে দেখেছো কি’ আজও কোনো ঘুম না আসা রাতে কিংবা এক মনখারাপি বিকেলে হেডফোনে বেজে ওঠে৷
পলাশ যে শুধু বসন্তে ফোটে ওঠে না: আবেগেও ফোটে, ‘মহীনের ঘোড়াগুলি’ শিখিয়েছিল আমাদের…

বাংলা ব্যঞ্জনবর্ণের একটি বর্ণ ‘চন্দ্রবিন্দু’ – সেই নামেই এল আরো এক ব্যান্ড, ১৯৯৮ সালে৷ গানপ্রেমীদের মন জয় করে নিল চন্দ্রিল, উপল, অনিন্দ্যদের অনবদ্য উপস্থাপনা৷ ওরাই প্রেম আর মনকে একে অন্যের পরিপূরক দেখাল, ওরাই তো, ‘ব্যথার আদরে অবুঝ আঙুল ‘ রাখল৷ পাশ্চাত্য পোশাকের প্রতি অনুরাগকে ব্যাঙ্গাত্মক অথচ শ্রুতিমধুর করে বলল ‘ আজকালকার মেয়ে গুলো সব স্মার্ট’৷ ঘুমভাঙা আদরের কলকাতায় চন্দ্রবিন্দু ভাসাল, ‘আদরের নৌকা’৷ ও হ্যাঁ , বাচ্চারা কিন্তু আজ এদের জন্যেই বলে-
‘ এ জুজু, এ জুজু আমাকে থাবা দিও না,
এ জুজু , এ জুজু তুমি তো জুজুসোনা’ !!

লোকগানের আদলে গান শোনাতে ১৯৯৯ সালেই এসেছিল,
‘ভূমি’৷ তার সাথে ছিল আধুনিকতাও৷ অনেক প্রেমিক যারা প্রেমিকার থেকে ‘ ক্যাবলা’ উপাধি পেয়েছিল, বস্তুত তাদের জন্যেই ছিল ‘ ওরম তাকিও না’…
অপেক্ষারত প্রেমের জন্য ছিল-‘তোমার দেখা নাই রে’৷ মনখারাপের সাক্ষী ছিল-‘ কান্দে শুধু মন কেন কান্দে রে’….আজও ভূমি সবার প্রিয়৷

‘ভালোবাসা মানে ধোঁয়া ছাড়ার প্রতিশ্রুতি’ কিংবা ‘ভালোবাসা মানে যে ‘দূরভাষ নিশ্চুপে শুনে ফেলে অনুভূতির হাসি’- একথা বলতে ১৯৯৬ সালে এল সেই সময়ের আরো এক উল্লেখ্য ব্যান্ড,
‘পরশপাথর’৷ বিরহের কঠোর ছোঁয়া দিয়ে ওরা শোনাল- ‘ এই মধুমাসে বধূ এসো কাছে’৷ ‘ইচ্ছেডানা’ বলল এক আকাশ স্বাধীনতার কথা…

ভাঙা প্রেম যে আদতে আর জোড়ে না, বড়ো হওয়ার দৌড়ে শৈশবের ‘হলুদ পাখি’ কোথায় উড়ে যায়,১৯৯২ সালে বলল ক্যাকটাস৷ হার্ড রকের আদলে বাংলা গানে আনল নতুন জোয়ার৷ এক বিতর্কিত সময়ের গান ‘যুদ্ধ এসেছে’ আজও প্রাসঙ্গিক৷

‘মহীনের ঘোড়াগুলি’ যে যুগের সূচনা করেছিল, ১৯৯৮ থেকে আজ- এই ১৮ বছর ধরে সেই যুগের সার্থক প্রতিনিধিত্ব করে চলেছে ফসিলস্৷ রূপম ইসলামের অনবদ্য সঙ্গীত আর বিশেষতঃ অ্যালেনের গীটারে প্রতিটি গানই আজ রকপ্রেমীদের মনের কাছাকাছি৷ ফসিলস্ই সাহস রাখে সমাজের মুখে ‘অ্যাসিড’ ছোঁড়ার কথা বলার৷ ফসিলসই বলতে পারে চোরা বাইসাইকেল সীটে ফ্রী তে যৌনতা দেওয়ার কথা৷ এভাবেই রক মন্ত্রে উদ্দীপিত হোক রকদুনিয়া…

পুনশ্চ :- যে সব ব্যান্ডের কথা নেই এখানে, লাফালাফি তাদের অসম্মান করছে এমন নয়৷ সবার আরো উন্নতি হোক, বাংলা সঙ্গীতের আরো উন্নতি হোক এটাই লাফালাফির কামনা৷

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close

Adblock Detected

Hi, In order to promote brands and help LaughaLaughi survive in this competitive market, we have designed our website to show minimal ads without interrupting your reading and provide a seamless experience at your fingertips.