• Home
  • Category: Romantic

যদিদং হৃদয়ং তব

'মাঝে মাঝে তব দেখা পাই, চিরদিন কেন পাই না..' সকালে নাচের স্কুলে মেয়েদের নাচ শেখাচ্ছে ঊর্মি। কিন্তু একটুতেই আজ যেন মেজাজ হারাচ্ছে বারবার। আসলে উর্মির মনটা কাল থেকে একদম ভালো নেই। ভেবেছিল নাচের ক্লাসটা আজ বন্ধ রাখবে। কিন্তু আগের সপ্তাহেও একদিন অফ করতে হয়েছিল, তাও আবার ওই.. থাক আর ওর…

চলো ভালোবাসা যাক (অন্তিম পর্ব)

হাসপাতালে পৌঁছে অপর্ণাকে দেখেই মাথা খারাপ হয়ে গেল সুমনাদেবীর। এই মেয়েটার জন্যই আজ এতকিছু! "তুমি এখানে কি করছো? আমার মেয়ের জীবনটা শেষ না করে ছাড়বেনা তাইনা? চলো আমার সাথে..." অপর্ণার হাত ধরে টানতে টানতে তাকে বাইরে নিয়ে এলেন সুমনাদেবী । "আরে সুমনা কি করছো? ওকে ছেড়ে দাও। ওই তো আমার…

এক বৃষ্টি ভেজা দিনে

আজ সকাল থেকেই ঝিরিঝিরি বৃষ্টি পড়ছে। আকাশেতে জমে আছে ঘন কালো মেঘ। এখনও ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। সাজি দোকানে একলা ঠাঁই বসে আছে। সকাল থেকে একটাও কেউ আসেনি ফুল কিনতে। এই বৃষ্টির সকালে কেই বা আসবে ফুল কিনতে! সাজি হলো গিয়ে এ পাড়ার মিত্তিরদের বাড়ির মেয়ে। বয়স ২৫ কি ২৬…

চলো ভালোবাসা যাক (প্রথম পর্ব)

- মা, ভালোবাসা কি কোনো নিয়ম মেনে হয়? আজ এই যুগে দাঁড়িয়েও তুমি এরকম ব্যাকডেটেড কথাবার্তা বলবে? শোনো, আমি ওকেই ভালোবাসি আর ওর সাথেই... ঠাস করে একটা চড় নেমে এলো মনীষার গালে। রাগে সারা শরীর থরথর করে কাঁপছে সুমনার। বাবাহারা এই মেয়েকে ছোট থেকে কত কষ্ট করে মানুষ করেছে সে।…

তিতাস (দ্বিতীয় পর্ব)

রিহাস~ ২৭-২৮ এর ইয়ং, হ্যান্ডসাম, কুল বয় রিহাস। সেও তিতাসের মতই এই শহরের বুকে একাই থাকে। গান নিয়ে ঘর-ছাড়া সে। তার বাবার ইচ্ছের বিরুদ্ধে যাওয়ার জন্য নিজের ঘর থেকেই বিতাড়িত সে। বাবার ব্যাবসায় কোনোকালেই মন ছিল না রিহাসের। গান পাগল ছেলে সে। গান নিয়েই মেতে থাকত, ইনফ্যাক্ট এখনো থাকে। আরে…

মধুর ক্ষণ

কিছু কিছু মুহুর্ত মনে আজীবন দাগ কেটে যায়। সে ছোটোখাটো মধুর কথোপকথন, খুনসুটি, মজা অনেক কিছুই হতে পারে। বিভিন্ন ছোট ছোট মধুর ক্ষণ নিয়েই তো আমাদের জীবন। সেরকমই একটি দুষ্টুমিষ্টি একটি মুহুর্ত লেখার পাতায় তুলে ধরলাম.. - দেখলি, ট্রেনটা মিস হয়ে গেল। সব তোর জন্য! - হ্যাঁ এখন তো সব…

তিতাস

আজ সকাল হতেই আকাশ মেঘলা। কালো কালো মেঘ গুলো কী ভীষণ রাশভারী। ওদের দেখলেই মনটা কেমন যেন খারাপ হয়ে যায়। আজ সকাল থেকে এমনিতেই মন খারাপ তিতাসের। ঘরের এক-চিলতে ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আকাশ দেখছে সে। আজকের দিনটি এমনিতেই মন খারাপের দিন। আজকের দিনই দিম্মা তাকে ছেড়ে নক্ষত্রের দেশে চিরতরে হারিয়ে…

একটি রাতের কল

কল করতে গিয়েও ফোনটা কেটে দিলো চিনি। কান্নাটা গলার কাছে আটকে আছে যেন। অর্ক এটা কি করে করতে পারলো ওর সাথে? এতদিনের ওর বিশ্বাস, ভালোবাসার এইভাবে দাম দিলো অর্ক? শপিং মলে রিতুর সাথে যখন অর্ককে দেখল নিজের চোখকে যেন বিশ্বাস করতে পারছিলনা চিনি। বিদিশা, চিনির বেস্ট ফ্রেন্ড, অনেক আগেই চিনিকে…

জল-নুপুর

সকাল থেকেই কৌশিকের মনটা তেতো হয়ে আছে। একেই দু'দিনের টানা বৃষ্টিতে কলকাতা ভাসছে। সেই অবস্থায় বহু কষ্টে জল পেরিয়ে যাওবা অফিস পৌঁছালো, বস প্রজেক্ট দিল ফটোস্টোরি বানানোর। সেটা আবার কালকেই সাবমিট করতে হবে। অগত্যা এই অবস্থায় বাধ্য হয়ে প্যান্ট গুটিয়ে ক্যামেরাটা হাতে করে কৌশিক বেরিয়ে পড়লো রাস্তায়। এদিক সেদিক কিছুটা…

নির্ধারিত

ক্রিং ক্রিং ক্রিং... (রিং হচ্ছে অর্পিতা-র ফোন।) - আরে ঘুমোলি না কি !? এই তো ধরেছে। - হুম বল!! কী রে এ সময়!! - এই অর্পি শোন না আজ একটা ঘটনা ঘটেছে !! - কী!? বল!! (ঘুম ঘুম কন্ঠে হাই তুলতে তুলতে) - আমি dinner এর পর বেলকনি তে দাড়িয়ে…